সংবাদ শিরোনাম :
দেশজুড়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা : রিজভী অল্প রানে গুটিয়ে গেল নেদারল্যান্ডস রংপুরে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাতিল হতে পারে বিশ্বকাপের পাক-ভারত ম্যাচ! সমুদ্রবন্দরে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত ডিএমপি কমিশনার-র‍্যাব ডিজি’র পদোন্নতি এবার রংপুরে হিন্দুপাড়ায় আগুন, আটক ২০ আমেরিকা ও কানাডাকে উসকানির ব্যাপারে সতর্ক করল চীন যুদ্ধ শুরু হলে হিজবুল্লাহ প্রতিদিন ২৫০০ রকেট ছুঁড়তে পারবে’ বিশ্বকাপ জিতেই অধিনায়কত্ব ছাড়তে চান কোহলি চবির ১২ ছাত্রলীগ কর্মীকে বহিষ্কার বিএনপি-জামায়াত ও তাদের দোসররা কুমিল্লার ঘটনা ঘটিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী
ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল সিআইডি

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিল সিআইডি

নিজস্ব প্রতিবেদক :  

ই-কর্মাসের নামে একের পর এক বেরিয়ে আসছে কোটি কোটি টাকা প্রতারণার তথ্য। সন্দেহজনক লেনদেনে জড়িত ৬০টি প্রতিষ্ঠানের তালিকা করেছে সিআইডি। এর মধ্যে ৩২টির বিরুদ্ধে তদন্তও চলছে।

প্রতারণা করে গ্রাহকের ৫০ কোটি টাকা আত্মসাৎকারী অনলাইন টিকেটিং এজেন্সি টোয়েন্টিফোর টিকেট ডটকমের পরিচালকসহ ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ছাড়া ইউকম ও থলে ডটকমের ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। যাদের বিরুদ্ধে পণ্য দেওয়ার নামে গ্রাহকের আড়াই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।

সোমবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে সিআইডি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এ সময় ই-কর্মাস প্রতিষ্ঠান রিং আইডির ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২০০ কোটি টাকা জব্দের কথাও জানিয়েছে সিআইডি।

নামিদামি ব্রান্ডের ইলেকট্রনিকস পণ্য ৫০ শতাংশ ছাড়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি, সেই সঙ্গে নানা লোভনীয় অফার। ৩০ দিনের মধ্যে পণ্য দেওয়ার কথা বলে শত শত গ্রাহকের কাছ থেকে আড়াই কোটি টাকা নিলেও পণ্য দেয়নি ইকমার্স প্রতিষ্ঠান উইকম ও থলে ডটকম।

একইভাবে অনলাইন টিকেটিং এজেন্সি টুয়োন্টি ফোর টিকেট ডটকম আত্মসাৎ করেছে গ্রাহকের ৫০ কোটি টাকা। এই তিন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের ৮ জনকে গ্রেপ্তারের পর এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য জানায় সিআইডি। ই-কর্মাস প্ল্যাটফর্মের সুযোগ নিয়ে প্রতারক চক্র গ্রাহকের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে বিদেশে পাচার করছে।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি ইমাম হোসেন বলেন, প্রতিষ্ঠানটির মালিক মূলত একজনই। একটি হচ্ছে- থলে ডটকম এবং আরেকটি হচ্ছে উইকুমডটকম। দুটি প্রতিষ্ঠানেই প্রচুর গ্রাহক আছেন। যে গ্রাহকরা দীর্ঘদিন ধরে তাদের কাছ থেকে পণ্য কিনেছেন, টাকাও দিয়েছেন। কিন্তু পণ্যও পাননি, টাকাও ফেরত পাননি।

আরেক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান রিং আইডি ২০১৮ সাল থেকে এখন পর্যন্ত গ্রাহকের কাছ থেকে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। গ্রাহকের কাছ থেকে অস্বাভাবিক ডিসকাউন্টে পণ্য বিক্রি ও ই ওয়ালেট এর মাধ্যমে শুধু সেপ্টেম্বর মাসেই ২০০ কোটি টাকার রিং আইডির অ্যাকাউন্টে যায়।

অতিরিক্ত ডিআইজি কামরুল আহসান বলেন, অনলাইন প্ল্যাটফর্মে প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের পরিমাণটা বেশি হয়ে যাচ্ছে। এটা একটা সাধারণ প্রবণতা হয়ে দাঁড়িয়েছে। রিং আইডির অ্যাকাউন্টে প্রায় ১০০ কোটি টাকার মতো প্রতি মাসে ভেতরে গেছে। গত সেপ্টেম্বর মাসে সর্বোচ্চ পরিমাণ ছিল ২০০ কোটি টাকার বেশি।

গ্রাহকের টাকা লোপাট প্রতিরোধে অভিযুক্ত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর সব ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছে সিআইডি।

 

মুক্তি.. / জয়নুল / রেজা

Print Friendly, PDF & Email

আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে এই পোস্টটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2015-2021 Muktiralo24.Com
Design & Developed BY SD REPON KHAN